হোম বাংলার সংবাদ রহস্যে ঘেরা বগুড়ার শেরপুরের ওবায়দুর

রহস্যে ঘেরা বগুড়ার শেরপুরের ওবায়দুর

অনলাইন ডেস্ক 07 Mar, 2021 11:04 PM

রহস্যে-ঘেরা-বগুড়ার-শেরপুরের-ওবায়দুর-2021-03-07-6045078eeed4b.jpg

১৯৯৫ সাল থেকে আত্মপ্রকাশ ঘটানো #ওবায়দুর যার নিজের বাড়ি গাইবান্ধা জেলার সাঘাটা থানার বগারভিটা নামক গ্রামে। যেকোনো ঘটনাচক্রে পা দেয় শেরপুর এর মাটিতে। এবং তৎকালীন বিএনপি ক্যাডার মামুন রায়হানের বোন মঞ্জুরি এর সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে অতঃপর সংসার বাঁধে,,, থাকে ঘরজামাই।

এই ওবায়দুর সাংসারিক অসচ্ছলতা অভাব-অনটনের কারণে কায়িক পরিশ্রম ব্যতিরেকে শুরু করে কালো রাস্তার পথে হাঁটা ২০০০ সালে বাসস্ট্যান্ডে মামুন রায়হান এর একটি গার্মেন্টস শোরুম যার নাম ছিল আনকমন কালেকশন সেই আনকমন কালেকশনের অন্তরালেই ওবায়দুরের মাদকের নীল ছোবল নিষিদ্ধ ঘোষিত ফেনসিডিলের ব্যবসা শুরু পরে এই সুবাদে শহরের আনাচে কানাচে কিশোর তরুণ যুবক ধনাঢ্য পরিবারের সন্তানদের স্বল্পমূল্যে, বিনামূল্যে, বাকিতে, ফেনসিডিল খাওয়া শেখায় এবং সেই সেবিদের অতি আপনজন হয় এই ওবায়দুর মাদকসেবীরা ভালোবেসে তাকে দুলাভাই নামে ডাকা শুরু করে।

দীর্ঘ সময় পর প্রশাসনের নজরে আসতে থাকে এই ছদ্দবেশী দুলাভাইকে নিয়ে চলে প্রশাসনিক তৎপরতা কয়েকবার ফেনসিডিলসহ পুলিশের কাছে ধরা খায় সর্বশেষ ২০১০ -১১ অর্থবছরে বিপুল পরিমাণ ফেনসিডিল সহ ধুনট মোড় এলাকায় ধরা খায় ওবায়দুর রহমান তার পরেই তার অন্যরূপে চলে আসেন ২০১২ তে সাব-রেজিস্ট্রি অফিস দলিল লেখক এর সনদ করে নেয় নিজ নামে যার সনদ নং ১৫৯। নিজ হাতে কোন দলিল না লিখেই বনে যান কোটিপতি অথচ,৪০/৪৫ বছরের অভিজ্ঞতা নিয়েও যারা এই অফিসে দলিল লেখার কাজ করে দেখা গেছে তারা তেমন কিছু কেউই করতে পারে নাই।

অথচ ২০১৮ সালের মধ্যে তিনি শহরের প্রাণকেন্দ্র তালতলা তে সুবিশাল ৪তলা ভবনসহ ক্রয় করেন কোটি টাকায়,নিজের আরো একটি ভবন আছে সেটিও ৫ তলা,বাসস্ট্যান্ডে হাটখোলা রোডের পাশেই ছিল তার আরো এক্টি ৫তলা ভবন যা সম্প্রতি মহাসড়ক উন্নয়ন এ অধিগৃহিত হয়।এবং শেরপুর বগুড়া সহ বিভিন্ন জায়গায় নামে বেনামে জমি ক্রয় থেকে শুরু করে কোটি টাকার ব্যাংক ব্যালেন্স কি ভাবে হল!!!! বন্ধু মামুন ঝরে গেল হেরোইন সেবনে কেন? এটা কি কোন স্বাভাবিক ব্যাপার,,,,, ভুক্তভোগী দলিল লেখকগন সহ অনেকেই তার রোষানলের স্বীকার হয়েছেন।

সম্প্রতি তিনি নিজের বুদ্ধিমত্তা জাহির করতে এবং নিজেকে ফেরেস্তা হিসেবে প্রমান করতে সুকৌশলে লেগে গেছে রাজনৈতিক ব্যাক্তিত্ব সম্পন্ন ব্যাক্তিগন,,,,এম,পি,পুত্র,,,, ,মেয়র, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দের নাম প্রকাশ করে সম্প্রতি কালের কণ্ঠ শেরপুর সাব-রেজিস্ট্রি অফিস এর মিথ্যা আত্মকাহিনী তৈরি করে রাজনৈতিক ব্যক্তিদের হেয় প্রতিপন্ন করার চেষ্টা করে। ব্যবহার করে অস্রাব্য মন্তব্য করতে তার কোন সমস্যাই হয় না। ,,,,,আরো আসছি,,,,মামলা নম্বরসহ ,নতুন তথ্য নিয়ে,,,,,গড ফাদার দের নিয়ে।


আরও :

আমাদের সাথে যুক্ত থাকুন

আরও সংবাদ