হোম বাংলার সংবাদ শিবগঞ্জের হাট গুলোতে মাছ ধরা ফাঁদ কেনা বেচার ধুম।।

শিবগঞ্জের হাট গুলোতে মাছ ধরা ফাঁদ কেনা বেচার ধুম।।

মিজানুর রহমান (বগুড়া)শিবগঞ্জ প্রতিনিধি 28 Aug, 2021 9:01 PM

শিবগঞ্জের-হাট-গুলোতে-মাছ-ধরা-ফাঁদ-কেনা-বেচার-ধুম।।-2021-08-28-612a4fc862cd4.jpg

টানা বৃষ্টিপাতে পানি বাড়লেই পড়ে যায় মাছ ধরার ধুম। বর্ষায় পানি বাড়ার সাথে সাথেই জেলে দের ব্যস্ততা বেড়ে যায়। মাছ ধরার তোরজোড় শুরু হয় এলাকায়। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত মাছ ধরার ধুম লক্ষ্য করা যায়। শুধু পেশাদার জেলেই নয় অনেকেই শখের বসেও মাছ ধরে এই সময়। আর এই সময়ে মাছ ধরার বিভিন্ন সরঞ্জাম তৈরীতে ব্যস্ত জেলে ও ব্যবসায়ীরা। হাট গুলোতে চলে মাছ ধরার সরঞ্জামের হরদম কেনা বেচা।

Open Photo

বগুড়া জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার দাড়িদহ হাটে গিয়ে দেখা যায় ব্যবসায়ী ও জেলেরা মাছ ধরার বিভিন্ন সরঞ্জামের পড়সা সাজিয়ে বসে আছেন। মাছ ধরার সরঞ্জাম গুলোর মধ্যে ছিল ডারকি, টেপা, পলই, খলই, কারেন্ট জাল, ঝাকি জাল প্রভূতি। কথা হয় উপজেলার গাংনগর এলাকার পেশাদার জেলে সাইদুরের সাথে। যিনি সুদুর গাংনগর থেকে দাড়িদহ হাটে বিক্রি করতে এসেছেন মাছ ধরার ফাঁদ। তার পূর্ব পুরুষের পেশাটাই তিনি আঁকড়ে আছেন। তিনি বলেন তার বাবা এবং দাদা একই পেশায় ছিলেন।

তিনি জানান, প্রতিটি ডারকি ৪০০-৫০০ টাকায়, টেপা প্রতিটি ১০০-১৫০ টাকা, পলই ১০০ টাকা, খলই ৫০ টাকা করে বিক্রি করা হয়। তবে চাহিদার উপর এই সব সরঞ্জামের দাম কম বেশি হয়। এছাড়া কারেন্ট, নেট জাল, ঝাকি জাল বিভিন্ন দামে বিক্রয় হচ্ছে।

আরেক ব্যবসায়ী উপজেলার কালুগাড়ি গ্রামের মিলন মিয়া জানান, বর্ষা আসলে পানি বাড়লে মাছ ধরার সরঞ্জামের চাহিদা বাড়ে তখন বেশ ভালোই বিক্রি হয়। এবছর বর্ষার শুরুর দিকে তেমন বৃষ্টি না হওয়ায় এই মৌসুমে তাদের বিক্রি কম হয়েছে। তবে টানা কয়েক দিনের বৃষ্টি পাতের ফলে এখন চাহিদা বাড়বে বলে জানান। বাজারে একাধিক ক্রেতার সাথে কথা বলে জানা যায় গত বারের তুলনায় এবার মাছ ধরার এই সব সরঞ্জামের দাম বেশি চাওয়া হচ্ছে। দরদম করে তারা ক্রয়ের চেষ্টা করছেন


আরও :

আমাদের সাথে যুক্ত থাকুন

আরও সংবাদ