হোম বিনোদন ২৪ বিদেশি চ্যানেল দেখা যাচ্ছে।।

২৪ বিদেশি চ্যানেল দেখা যাচ্ছে।।

অনলাইনডেস্ক 05 Oct, 2021 6:11 PM

২৪-বিদেশি-চ্যানেল-দেখা-যাচ্ছে।।-2021-10-05-615c40fac49d5.jpg

‘ক্লিন ফিড’ বা বিজ্ঞাপন ছাড়া অনুষ্ঠান প্রচার করে এমন কয়েকটি বিদেশি টেলিভিশন চ্যানেল বাংলাদেশে দেখা যাচ্ছে। ক্লিন ফিড সরবরাহ করে এমন ২৪টি চ্যানেল সম্প্রচারের নির্দেশ দেওয়ার পর বিবিসি, সিএনএন, ন্যাশনাল জিওগ্রাফি, ডয়েচে ভেলে, স্টার স্পোর্টসের মতো চ্যানেলগুলো দর্শকরা দেখতে পাচ্ছেন।

মঙ্গলবার (৫ অক্টোবর) সকালে রাজধানীর মিরপুর, তেজগাঁও, আজিমপুর, পরিবাগ, কলাবাগান, সূত্রাপুর এলাকায় কয়েকটি বিদেশি চ্যানেল দেখা যাচ্ছে।

কেবল অপারেটরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (কোয়াব) সভাপতি এসএম আনোয়ার পারভেজ জানান, আমরা ২৪টি চ্যানেল দেখাচ্ছি।

এর আগে ক্লিন ফিড’ সরবরাহ করে এমন ২৪টি টেলিভিশন চ্যানেল সম্প্রচার করতে নিদের্শ দিয়েছিল তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়।

গত শনিবার (২ অক্টোবর) তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বলেন, সরকার কোনো চ্যানেল বন্ধ করেনি। বিদেশি চ্যানেলগুলোর যারা এজেন্ট ও অপারেটর, তারা বিজ্ঞাপনমুক্ত ফিড চালাতে পারছে না বলে সম্প্রচার বন্ধ করেছে। যে সমস্ত বিদেশি চ্যানেল বিজ্ঞাপনবিহীনভাবে সম্প্রচার করছে, তাদের চ্যানেল কিন্তু চলছে, চলতে কোনো বাধা নেই।


চ্যানেলগুলো হলো-বিবিসি, সিএনএন, আল জাজিরা এইচডি, ডিডাব্লিউ, কেবিএস ওয়ার্ল্ড, এআরআই র‌্যাংগ টিভি, এনএইচকে ওয়ার্ল্ড, সিজিটিএন, রাশিয়া টুডে, ফ্রান্স ২৪, লোটাস, ট্রাভেল এক্সপি এইচডি, আল কুরান, টেন স্পোর্টস, ডিসকভারি, ন্যাশনাল জিওগ্রাফি, দুবাই স্পোর্টস, মাস্তি টিভি, বিফরইউ মিউজিক, এমটিভি, স্টার স্পোর্টস ১, স্টার স্পোর্টস-২, স্টার স্পোর্টস ৩, স্টার স্পোর্টস ৪।

প্রসঙ্গত, সেদিক থেকে জি বাংলা, স্টার জলসা ও স্টার প্লাসসহ অন্যান্য বিদেশি চ্যানেল ‘ক্লিন ফিড’ না পাঠালে আগামী ৩০ সেপ্টেম্বরের পর বাংলাদেশে সম্প্রচার করতে পারবে না বলে সিদ্ধান্ত নেয় সরকার।

ক্যাবল টেলিভিশন নেটওয়ার্ক পরিচালনা আইনে বিদেশি কোনো চ্যানেলের মাধ্যমে বিজ্ঞাপন সম্প্রচার বা সঞ্চালন করলে লাইসেন্স বাতিল এবং দুই বছরের কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ডের বিধান রয়েছে। আইন অনুযায়ী দেশি নয়, কোনো ধরনের বিজ্ঞাপনই বিদেশি চ্যানেলে প্রদর্শন করতে পারে না।

টেলিভিশন প্রযুক্তিতে ‘ক্লিন ফিড’ বলতে মূল ভিডিও সিগন্যালকে বোঝায়। পরবর্তীতে এই ভিডিও গ্রাফিকস এবং টেক্সট যুক্ত করা হয়। চ্যানেল কর্তৃপক্ষ প্রয়োজন অনুযায়ী ফিডের মাঝে মাঝে বিজ্ঞাপনের ক্লিপ যুক্ত করে। বাংলাদেশে বিদেশি চ্যানেলগুলো কোনো ধরনের অনুমতি ছাড়াই এই বিজ্ঞাপন বা অন্যান্য প্রচারণাসহ সম্প্রচার হচ্ছিল।


আরও :

আমাদের সাথে যুক্ত থাকুন

আরও সংবাদ